শেখ সফিঃ (২১/০৫/২০২০) ঃ
বুধবার (২০ মে) রাতে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট সুপার সাইক্লোন আম্পান মেহেরপুর-মুজিবনগর, চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহ জেলার উপর দিয়ে বাংলাদেশ অতিক্রম করছে। এ ঘটনায় রাত ১০ টার দিকে শুরু হয়ে রাত দেড়টা পর্যন্ত মেহেরপুরে চলে দমকা হাওয়া ও ঝড়ো বৃষ্টি। এ ঝড়ে প্রাণহানির কোন খবর পাওয়া না গেলেও উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।
জেলার বিভিন্ন এলাকার মাঠ ঘুরে দেখা গেছে মাঠের শত শত বিঘা জমির কলাগাছ ভেঙে গেছে, মাঠের ধান পানির উপর শুয়ে পড়েছে। ক্ষেতের পাটের মাথা ভেঙে গেছে, অনেক জমির পাট শুয়ে পড়েছে। এছাড়া মাঠের অন্যান্য ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এদিকে আম-লিচুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আর কয়েক দিন পরে বাজার উঠার কথা মেহেরপুরের আম-লিচু। গত রাতের ঝড়ে আম-লিচু ঝরে পড়েছে। এতে আম-লিচু চাষিদের মাথায় হাত। এদিকে শত শত কাঁচা ঘর-বাড়ি ভেঙে গেছে। টিনের চাল উড়ে গেছে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও অসহায় দরিদ্র মানুষের ঘর-বাড়ির। গাছপালা উপড়ে পড়েছে। রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে গেছে। বিদ্যুৎ, টেলিফোনের তার ছিড়ে পড়েছে। খুটি উপড়ে গেছে। বুধবার সন্ধ্যা থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ১ টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বন্ধ ছিল।
মেহেরপুর শহরের আম চাষি আবুল কালাম বলেন- শহরের উপকন্ঠ বামনপাড়াতে তার ১২ বিঘা জমির আম বাগানে এবার প্রচুর আম এসেছিল। ২৫ মে মেহেরপুর-মুজিবনগরে আম ভাঙা শুরু হবে। লাভের আশায় ছিলাম। কিন্তু গত রাতে ঝড়ের তান্ডব সে আশায় ছাই ফেলেছে।
মুজিবনগর উপজেলার বাগোয়ান গ্রামের গ্রামের রানা বলেন- তিনি ৭ বিঘা জমিতে কলা চাষ করেছেন। কিছু কিছু গাছে কাদি রয়েছে আবার কিছু কিছু গাছে মোচা বের হওয়ার সময় এসেছিল। এ সময় প্রলঙ্করী ঝড়ে গাছ মাটিতে শুয়ে পড়েছে। এতে তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
মুজিবনগর উপজেলার ভবরপাড়া গ্রামের চাষি সাইম জানান- এ বছর তিনি ৪বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছেন। রাতে ঝড়ের পরে সকালে মাঠে গিয়ে দেখেন ক্ষেতের অধিকাংশ পাট গাছ শুয়ে পড়েছে। কিছু কিছু গাছ দাঁড়িয়ে থাকলেও গাছের মাথা কেটে পড়ে গেছে। পাট নিয়ে তার স্বপ্ন এবছর শেষ হয়ে গেছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা স্বপন কুমার খাঁ বলেন- এই মুহুর্তে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান বলা যাচ্ছেনা। উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের মাঠে মাঠে পাঠিয়ে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান নির্ণয় করার চেষ্টা চলছে।